ঢাকা, আজ সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০

৮ দিনে ছয় জনের মৃত্যুর ঘটনা তদন্তে বিশেষজ্ঞ টিম তানোরে

প্রকাশ: ২০১৯-০২-০৫ ০৯:৩২:৫৭ || আপডেট: ২০১৯-০২-০৫ ০৯:৩২:৫৭

রাজশাহীর তানোর উপজেলার বহরইল ভান্ডাইল গ্রামে অজ্ঞাত রোগে ৮ দিনের ব্যবধানে ছয় জনের মৃত্যুর ঘটনা সরেজমিনে তদন্ত করছে বিশেষজ্ঞ টিম। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ঢাকার (আইডিসিআর) পাবলিক হেল্থ ইমারজেন্সি রেসপন্সের ছয়জন সদস্য নিয়ে এ বিশেষজ্ঞ টিম গঠন করা হয়েছে।

সোমবার দুপুরে তানোর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন একই গ্রামের ছয়জনের আলামত সংগ্রহ ও তাদের সঙ্গে কথা বলেন। এরপর টিমের সদস্যরা অজ্ঞাত রোগের অনুসন্ধানে সরেজমিনে ওই গ্রামে গিয়ে সেখানকার অধিবাসীদের সঙ্গেও কথা বলেন।

বিশেষজ্ঞ ডা. আব্দুল্লাহেল মারুফ এর নেতৃত্বে আসা ছয় সদস্যের টিমে ছিলেন ডা. রাব্বানী, ডা. ফারসিম, ডা. শাহনাজ শানু, ল্যাব বিশেষজ্ঞ মামুন ও আব্দুল কুদ্দুস।

জানা যায়, সোমবার দুপুর ১২টার দিকে ঢাকা থেকে বিশেষজ্ঞ দলের সদস্যগণ প্রথমে তানোর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন ওই গ্রামের ছয় ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় তারা অসুস্থদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন এবং রক্তের নমুনা সংগ্রহ করেন। এরপর বিকেলে বিশেষজ্ঞ দলের সদস্যগণ ওই গ্রামে গিয়ে তথ্য সংগ্রহের কাজ শুরু করেন।

এর আগে রাজশাহীর জেলা প্রশাসক এসএম আব্দুল কাদের এবং সিভিল সার্জন ডা. সঞ্জিত কুমার সাহা সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় তানোর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন ওই গ্রামের অসুস্থ ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলেন। পরে তারাও সরেজমিনে ওই গ্রামে গিয়ে গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় তারা গ্রামের অধিবাসীদের আতঙ্কিত না হওয়ারও পরামর্শ দেন। সরকারের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় সবধরণের চিকিৎসা সহায়তার আশ্বাস দেন।

এ সময় তাদের সঙ্গে ছিলেন তানোর উপজেলা নির্বাহী অফিসার চৌধুরী মোহাম্মদ গোলাম রাব্বী, তানোর সহকারী কমিশনার (ভূমি) আব্দুল্লাহ আল মামুন, তানোর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. রোজিয়ারা খাতুন, তানোর থানার ওসি রেজাউল ইসলাম প্রমুখ।

এদিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ঢাকার (আইডিসিআর) পাবলিক হেল্থ ইমারজেন্সি রেসপন্স টিমের প্রধান ডা. আব্দুল্লাহেল মারুফ উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, ‘আতঙ্কিত হওয়ার মত কিছু তারা এখনো খুঁজে পাননি। তদন্ত ও গবেষণার জন্য আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। তবে বিষয়টি সময়সাপেক্ষ।’

তিনি আরও বলেন, ‘পুরো বিষয়টি পর্যবেক্ষণ ও গবেষণার কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত বিশেষজ্ঞ দলের সদস্যরা তানোরে কাজ করবেন।’

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. রোজিয়ারা খাতুন আইডিসিআর বিশেষজ্ঞ দলের তানোরে অবস্থানের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘ওই টিমের সদস্যরা তানোর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বরে অবস্থান করছেন। তাদের আলামত সংগ্রহ ও গবেষণার জন্য যে কয়দিন তানোরে থাকা প্রয়োজন তারা এখানে সে কয়দিন অবস্থান করবেন।’

উল্লেখ্য, তানোরের বহরইল গ্রামে গত ২৭ জানুয়ারি ১ ঘন্টার ব্যবধানে জনাব আলী (৪৫), নুরী বিবি (৬৫) ও রুবেল হোসেনের ৪দিনের ছেলে শিশুর মৃত্যু হয়। এর পরদিন ২৮ জানুয়ারি একই গ্রামের বৃদ্ধ সমশের আলীর (৭০) মৃত্যু হয়। এ নিয়ে গত ২৯ জানুয়ারি দৈনিক ইত্তেফাকের ২ এর পাতায় ‘তানোরে অজ্ঞাত রোগে দুইদিনে চারজনের মৃত্যু’ শীর্ষক সংবাদ প্রকাশিত হয়। এরপর গত ১ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার রাহেলা বেগম (৪৮) নামের আরেক নারীর মৃত্যু হয়। পরদিন ২ ফেব্রুয়ারি ইমাম আলী বাবু (৩৮) নামের ওই গ্রামের এক পল্লী চিকিৎসকের মৃত্যু হয়। এছাড়া ২৯ জানুয়ারি থেকে ওই গ্রামের ১২ ব্যক্তি অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। তাদের মধ্যে ছয়জন এখনো তানোর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন। বাকিরা সুস্থ্য হয়ে ইতোমধ্যে বাড়ি ফিরেছেন।

আক্রান্তরা হঠাৎ বুক ও পিঠে ব্যাথা, জ্বর-সর্দিতে আক্রান্ত হন এবং তাদের শরীর কালচে রং ধারণ করে। এসব মৃত্যু ও অসুস্থ্যতার ঘটনায় বহরইল গ্রামসহ আশপাশের গ্রামগুলোতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।