ঢাকা, আজ সোমবার, ২ আগস্ট ২০২১

‘নাগরিকত্ব-পূর্ণ অধিকার দিয়ে মিয়ানমারে ফেরানো উচিত রোহিঙ্গাদের’

প্রকাশ: ২০১৯-০২-০৬ ১১:২৫:১৮ || আপডেট: ২০১৯-০২-০৬ ১১:২৫:১৮

রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব ও পূর্ণ অধিকার দিয়ে মিয়ানমারে ফেরানো উচিত বলে মন্তব্য করেছেন জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর-এর বিশেষ দূত ও হলিউড তারকা অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। মঙ্গলবার (০৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালংয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি। উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্প ঘুরে দেখার পাশাপাশি নির্যাতনের শিকার রোহিঙ্গা নারী-পুরুষের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি।

প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প ঘুরেই মুখোমুখি হলেন সাংবাদিকদের। জানালেন দু’দিনের সফর শেষে নিজের উপলব্ধির কথা। বললেন, নাগরিকত্বের স্বীকৃতি ছাড়া মিয়ানমারে ফিরে যেতে রাজি নয় রোহিঙ্গারা।

অ্যাঞ্জেলিনা জোলি বলেন, ‘রোহিঙ্গারা শুরু বাস্তচ্যুতই নয়,তারা নির্যাতিতও। তারা জন্মগতভাবে মিয়ানমারের নাগরিক হলেও তাদের রোহিঙ্গা বলে সম্বোধন করা হচ্ছে। এটি সত্যি দু:খজনক।’

রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারে নিরাপদ ও বাসযোগ্য পরিবেশ তৈরির অনুরোধ জানান জোলি। এ সময় অ্যাঞ্জেলিনা জোলি বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন নিশ্চিতে ইউএনএইচআরও বাংলাদেশ সরকার কাজ করে যাচ্ছে। নিজ দেশে সম্মানের সাথে ফিরে যাবার পূর্ণ স্বাধীনতা রয়েছে তাদের। রোহিঙ্গা সমস্যা বিশ্বের বড় একটি সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে তবে বাংলাদেশ তাদের আশ্রয় দিয়ে বিশ্বে বড় একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।’

জাতিসংঘের এই বিশেষ দূত বলেন, রোহিঙ্গাদের ফেরার পরিবেশ তৈরির দায়িত্ব মিয়ানমার সরকারের। অ্যাঞ্জেলিনা জোলি বলেন, ‘আমরা বাংলাদেশে এসেছি জাতিসংঘ ও সরকারের সহযোগিতায় শরণার্থীদের অধিকার ও পরিচয় নিশ্চিত করতে।’

মঙ্গলবার( ৫ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে দশটার দিকে, কুতুপালং ক্যাম্পের টিভি টাওয়ার সংলগ্ন ইউএনএইচসিআর এর ট্রানজিট ক্যাম্পে যান জোলি। সেখান থেকে কুতুপালং এক্সটেনশন-ক্যাম্প ফোরের শিক্ষা কেন্দ্রগুলো ঘুরে দেখেন তিনি। এছাড়া হোপ ফাউন্ডেশন পরিচালিত হাসপাতাল, রিলিফ ইন্টারন্যাশনাল পরিচালিত স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র ঘুরে দেখেন ও নির্যাতিতা নারীদের সাথে আলাপ করেন। বুধবার জোলির ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে।