ঢাকা, আজ শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২০

দু-একদিনের মধ্যেই কাদেরের লাইফসাপোর্ট খুলে ফেলা হবে

প্রকাশ: ২০১৯-০৩-০৬ ১৫:২১:০০ || আপডেট: ২০১৯-০৩-০৬ ১৫:২১:০০

ম্যাসিভ হার্ট অ্যাটাক করে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক অনেকটাই শঙ্কামুক্ত। দু-একদিনের মধ্যেই তার লাইফসাপোর্টের কৃত্রিম ডিভাইস (যন্ত্রাদি) খুলে ফেলা হবে।

মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ডের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সিঙ্গাপুরে অবস্থানরত বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নিওরোলজিস্ট অধ্যাপক ডা. আবু নাসার রিজভী।

সিঙ্গাপুরে স্থানীয় সময় বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় দ্বিতীয়বারের মতো ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা ব্রিফ করেন পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট মেডিকেল বোর্ডের প্রধান ডা. ফিলিপ কোহর এ সময় বোর্ডের অন্য সদস্যরাও তার সঙ্গে ছিলেন।

ব্রিফিংয়ের পর ডা. ফিলিপের বক্তব্যের আলোকে ব্রিফ করেন প্রফেসর ডা. আবু নাসার রিজভী। তিনি বলেন, ‘ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা দিন দিন ভালোর দিকে যাচ্ছে। উনার কিডনি স্থিতিশীল আছে। উনার ইনফেকশনের মাত্রাটাও অনেক কমে গেছে।

ব্লাড কাউন্ট ও ইউরিন আউটপুটও ভালো রয়েছে। হার্টের কন্ডিশন, প্রেসার ও হার্টবিট ভালো আছে।

চিকিৎসকরা চিন্তা করছেন, আগামী দু-একদিনের মধ্যে উনার শরীরে যে আর্টিফিশিয়াল মিনস ও ডিভাইস আছে তা খুলে ফেলা হবে। আগামীকাল কিছু ডিভাইস খোলা হবে। আর এভাবে যদি শারীরিক অবস্থার উন্নতি ঘটতে থাকে তা হলে শুক্রবার বাকি ডিভাইসগুলো খুলে ফেলা হবে।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় দুপুর সাড়ে ১২টায় ডা. ফিলিপ আবার ব্রিফ করবেন বলে জানান তিনি।

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের উপ-প্রধান তথ্য কর্মকর্তা মো. আবু নাছের স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে উপরোক্ত বিষয়টি জানানো হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে অধ্যাপক রিজভীর প্রেস ব্রিফিংয়ের একটি ভিডিও ক্লিপিংও মিডিয়ার কাছে পাঠানো হয়।

এ সময় কাদেরের সহধর্মিণী বেগম ইশরাতুন্নেসা কাদের, সিঙ্গাপুরে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম, নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরী এমপি, ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দীন হাজারী এমপি, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহে আলম মুরাদ ও সিঙ্গাপুরস্থ বাংলাদেশ কমিউনিটি নেতৃবন্দসহ হাইকমিশনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।